আইপিএলে অনন্য এক রেকর্ড গড়লেন রায়না

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) ৫ হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করলেন সুরেশ রায়না।

চেন্নাই সুপার কিংসের এই তারকা ক্রিকেটার ১৭৭ ম্যাচ খেলে এক সেঞ্চুরি এবং ৩৫টি ফিফটির সাহায্যে সর্বোচ্চ ৫ হাজার ৪ রান করেন।

আইপিএলের ১২তম আসরের উদ্বোধনী ম্যাচে শনিবার বিরাট কোহলির নেতৃত্বাধীন রয়েল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর বিপক্ষে ২১ বলে তিনটি চারের সাহায্যে ১৯ রান করে আউট হন সুরেশ রায়না। এই রান করার মধ্য দিয়ে ৫ হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করেন চেন্নাই সুপার কিংসের ওপেনার সুরেশ রায়না।

শনিবার ব্যাটিংয়ে নামার আগে রায়নার সংগ্রহ ছিল ১৭৬ ম্যাচে ৪ হাজার ৯৮৫ রান। পাঁচ হাজার রানের জন্য অপেক্ষা ছিলা মাত্র ১৫ রানের। এদিন ১৯ রান করার পথে মাইলফলক স্পর্শ করেন রায়না।

১৬৪ ম্যাচ খেলে ৪ হাজার ৯৫৪ রান নিয়ে দ্বিতীয় পজিশনে আছেন বিরাট কোহলি।

শনিবার ইমরান তাহির এবং হরভজন সিংহের স্পিনে বিভ্রান্ত হয়ে ৭০ রানে অলআউট রয়েল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু। আইপিএলের ১২তম আসরের উদ্বোধনী ম্যাচে চেন্নাই সুপার কিংসের বিপক্ষে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে ৭০ রানে অলআউট বেঙ্গালুরু।

চেন্নাইয়ের হয়ে ৪ ওভারে মাত্র ৯ রানে ৩ উইকেট শিকার করেন দক্ষিণ আফ্রিকার লেগ স্পিনার ইমরান তাহির। এছাড়া ৪ ওভারে ২০ রানে ৩ উইকেট শিকার করেন হরভজন সিং।

শনিবার চেন্নাইয়ের এম চেন্নাস্বামী স্টেডিয়ামে টস হেরে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই বিপদে পড়ে যায় বেঙ্গালুরু।

ইনিংসের চতুর্থ ওভারে দলকে ব্রেক থ্রু এনে দেন হরভজন সিং। জাতীয় দলের সাবেক এই তারকা অফ স্পিনারকে বাউন্ডারি হাঁকাতে গিয়ে ডিপ মিডউইকেটে থাকা রবিন্দ্র জাদেজার হাতে ক্যাচ তুলে দেন দিয়ে ফেরেন কোহলি।কোহলির পর মঈন আলীকে সাজঘরে ফেরান হরভজন সিং। এরপর চতুর্থ ওভারে বোলিংয়ে এসে বেঙ্গালুরুর তারকা ব্যাটসম্যান এবি ডি ভিলিয়ার্সকে আউট করেন ভাজ্জি।

আইপিএলে ক্যারিয়ারের ১৫০তম ম্যাচ খেলতে নেমে কোহলি-মাঈন আলী-ভিলিয়ার্সকে আউট করে ড্যারেন ব্রাভোকে পেছনে ফেলেন হরভজন সিং। ১৩৮ উইকেট শিকারের মধ্য দিয়ে আইপিএল সেরা বোলারের তালিকায় শীর্ষ চারে উঠে এসেছেন হরভজন। ১৫৪ উইকেট শিকার করে সবার ওপরে আছেন লাসিথ মালিঙ্গা। ১৪৬ উইকেট শিকার করে দ্বিতীয় পজিশনে অমিত মিশ্র।

হরভজনের কারিশমা শেষ হতে না হতেই শুরু হয় ইমরান তাহিরের লেগ স্পিন। তার শিকার হয়ে একের পর এক সাজঘরে ফেরেন শিভম দুবে, নভদীপ সাইনি ও যুজবেন্দ্র চাহাল।

সময়ের ব্যবধানে উইকেট পতনের কারণে শেষ পর্যন্ত ১৭.১ ওভারে ৭০ রানেই অলআউট বেঙ্গালুরু। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ২৯ রান করেন ওপেনার পার্থিব প্যাটেল। তিনি ছাড়া দলের ১০জন ব্যাটসম্যান দুই অঙ্কের ফিগার রান করতে পারেননি।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

বেঙ্গালুরু: ১৭.১ ওভারে ৭০/১০ (প্যাটেল ২৯, ভিলিয়ার্স ৯, মঈন আলী ৯, কোহলি ৬, গ্রান্ডহোম ৪, চাহাল ৪, দুবে ২, সাইনি ২, যাদব ১, হিটমার ০, সিরাজ ০*; ইমরান ৩/৯, হরভজন ৩/২০)।